বৃহস্পতিবার   ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ || ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ || ১৭ শা'বান ১৪৪৫

অপরাজেয় বাংলা :: Aparajeo Bangla

জাহাজের নিচে লুকিয়ে ১৪ দিন, পাড়ি দিলেন ৫৬০০ কিলোমিটার!

সাতরং ডেস্ক

১৫:৩৮, ২ আগস্ট ২০২৩

৪১৯

জাহাজের নিচে লুকিয়ে ১৪ দিন, পাড়ি দিলেন ৫৬০০ কিলোমিটার!

একটি কার্গো জাহাজের নিচে রুডারের উপরে একটি ছোট্ট জায়গায় বসে ৫৬০০ কিলোমিটার পাড়ি দিয়েছেন নাইজেরিয়ার চার ব্যক্তি। ব্রাজিলের একটি বন্দর থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়েছে। এই দীর্ঘ ভয়াবহ যাত্রায় তাদের সময় লেগেছে ১৪ দিন।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, ওই চার নাইজেরীয় ছোট্ট একটু জায়গায় ১৪ দিন ধরে ছিলেন। দশম দিনে তাদের খাবার ও পানি শেষ হয়ে যায়। বাকি চারদিন তারা সমুদ্রের পানি পান করেছেন।

খবরে বলা হয়েছে, তারা যে কুঠুরিতে বসে ছিলেন তার মাত্র এক মিটার নিচেই ছিল সমুদ্রের উত্তাল ঢেউ। ব্রাজিলের ভিটোরিয়ার দক্ষিণ-পূর্ব বন্দরে ব্রাজিলিয়ান ফেডারেল পুলিশ তাদের উদ্ধার করে।

নিজ দেশে তীব্র সংকট থেকে বাঁচতে এবং উন্নত জীবনের আশায় তারা সমুদ্রে প্রায় ৫৬০০ কিলোমিটার (৩৫০০ মাইল) ভ্রমণ করেন। এই দুর্গম যাত্রায় যেকোনো সময় তাদের মৃত্যু হতে পারতো।

তাদেরকে সাও পাওলোর একটি গির্জায় আশ্রয় দেওয়া হয়েছে। ওই চার নাইজেরিয়ানের একজন ৩৮ বছর বয়সি ওপেমিপো ম্যাথিউ ইয়ে। তিনি বলেন, এটি ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা ছিল। আমি খুব ভয় পেয়েছিলাম। কাঁপছিলাম। শেষ পর্যন্ত এখানে আছি।

তবে এই দীর্ঘ যাত্রা শেষে তারা জানতে পারে যে এটি ব্রাজি। তখন তারা হতাশ হয়েছিলেন। কারণ তারা মনে করেছিল, জাহাজে বসে আটলান্টিক পাড়ি দিলে তারা ইউরোপে পৌঁছতে পারবেন।

চারজনের দুইজনকে তাদের অনুরোধে নাইজেরিয়ায় ফেরত পাঠানো হয়েছে। বাকি দুইজন ব্রাজিলে আশ্রয়ের আবেদন করেছেন।

সম্প্রতি ওপেমিপো ম্যাথিউ বলেন, 'আমি প্রার্থনা করি ব্রাজিল সরকার আমার প্রতি করুণা করবে'। এর আগেও তিনি জাহাজে করে পালানোর চেষ্টা করেছিলেন তবে নাইজেরীয় পুলিশ তাকে ধরে ফেলে।

ওই ব্যক্তিরা জানিয়েছেন যে, অর্থনৈতিক কষ্ট, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা এবং অপরাধ তাদের জন্মভূমি নাইজেরিয়া ত্যাগ করা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।

আফ্রিকার সবচেয়ে জনবহুল দেশ নাইজেরিয়ায় দীর্ঘদিন ধরে চলছে সহিংসতা। এছাড়া দেশটিতে দীর্ঘস্থায়ী অর্থনৈতিক সংকট চলছে। এসব কারণে অপরাধের মাত্রাও ভয়াবহ আকারে বেড়েছে।

 

Kabir Steel Re-Rolling Mills (KSRM)
Rocket New Cash Out
Rocket New Cash Out
bKash
Community Bank