বৃহস্পতিবার   ০৭ জুলাই ২০২২ || ২৩ আষাঢ় ১৪২৯ || ০৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

অপরাজেয় বাংলা :: Aparajeo Bangla

স্বচ্ছতা, বিশ্বস্ততা সোনালী লাইফকে পৌঁছে দিয়েছে নতুন উচ্চতায়: রাশেদ আমান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

১৪:২৩, ২৮ মার্চ ২০২২

আপডেট: ১৪:২৫, ২৮ মার্চ ২০২২

১২৪৬

স্বচ্ছতা, বিশ্বস্ততা সোনালী লাইফকে পৌঁছে দিয়েছে নতুন উচ্চতায়: রাশেদ আমান

‘করোনা সংকটকালীন সময়েও আমরা ২০২০ সালে বছরে ৭০ শতাংশ এবং ২০২১ সালে ১৪০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি করেছি। ২০১৯ সালের ৮১ কোটি টাকার গ্রস প্রিমিয়াম ২০২০ সালে বেড়ে ১৩৫ কোটি এবং ২০২১ সালে তা ৩২০ কোটি হয়েছিল। গত সাড়ে আট বছরে এ পর্যন্ত ১৪ হাজারেরও বেশি দাবি পেয়েছি এবং সবগুলি ৭ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করেছি।’ কথাগুলো বলছিলেন সোনালী লাইফ ইন্সুরেন্সের সিইও মীর রাশেদ বিন আমান। সম্প্রতি অপরাজেয় বাংলাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সোনালী লাইফের গৌরবময় অর্জনগুলো তিনি তুলে ধরেন।

সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি সর্বাধিক আধুনিক ডিজিটাল পরিষেবা সরঞ্জাম ব্যবহারের মাধ্যমে বিভিন্ন পরিসরের গ্রাহকদের চাহিদা পূরণ করে এবং এইভাবে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনার লক্ষ্য রাখে। সদ্য আপডেট হওয়া মোবাইল অ্যাপের লঞ্চ এইসত্যের প্রমাণ যে সোনালী লাইফ ক্রমাগত উন্নত গ্রাহক পরিষেবা নিশ্চিত করে তার পরিষেবাগুলিকে উন্নত করে চলেছে। বীমা শিল্প সঠিক পথে চলছে, সংশ্লিষ্ট সকল ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান যদি একইপথে এগিয়ে যায়, তাহলে এখাত বিকশিত হবে।’

তিনি জানান, সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স আইটি কে কেন্দ্র করে গ্রাহকদের জন্য প্রতিশ্রুতি বদ্ধ এবং আধুনিক পরিষেবা সহ একটি জীবন বীমা কোম্পানি তৈরি করতে চায়। তারা চেষ্টা করে যাচ্ছে এবং একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে সফলতা অর্জন করেছে তবে অর্জনের আরও অনেক কিছু আছে।

সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘সত্যি বলতে, সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের স্বপ্নদ্রষ্টা আমাদের অভিভাবক জনাব মোস্তফা গোলাম কুদ্দুসের কাছ থেকে আমরা আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি পেয়েছি। আমাদের মূল লক্ষ্য ছিল জীবনবীমা খাতের নেতিবাচক দিকগুলি দূর করা।

তিবাচক দিকগুলির কারণে, এতবছর পরেও, বাজার অনুপ্রবেশ প্রত্যাশা অনুযায়ী হচ্ছেনা। বাজার অনুপ্রবেশ সম্ভব, যদি আমরা নেতিবাচক থেকে ইতিবাচক পরিবর্তনের দিকে এগিয়ে যেতে পারি। এটি নির্ভরতা এবং আস্থার বিষয়। মূল বিষয়টি হলো অর্থ গ্রহণএবং সময় মত সেবা প্রদান করা। এই ফেব্রুয়ারিতে, আমরা আমাদের প্রিয় গ্রাহকদের জন্য একটি চমৎকার আপডেট করা অ্যাপ চালু করেছি যেন যে কেউ বিশ্বের যে কোনো প্রান্ত থেকে জীবন বীমা নিতে পারে। এটি গুগল প্লেস্টোর বা নেট খুঁজে পাওয়া যাবে। জীবন বীমা সংক্রান্ত আইন অনুযায়ী নথি জমা দেওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে।’

সোনালী লাইফের ব্যবসায়িক কৌশল বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের কৌশলগুলি পূর্ব পরিকল্পিত এবং কেন্দ্রীভূত। কীভাবে তারা আমাদের সিস্টেম থেকে উপকৃত হতে পারে এবং কীভাবে তারা তাদের বোনাস, রসিদ, প্রিমিয়াম সার্টিফিকেট, অনলাইন পেমেন্ট ইত্যাদি চেক করতে পারে সে সম্পর্কে তাদের তথ্যদিয়ে আমরা সরাসরি সচেতনতা তৈরি করছি। আমাদের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হয়েছে কারণ সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স প্রথম থেকেই উদ্দেশ্য,  প্রতিশ্রুতি, সিস্টেম এবং পরিষেবার দিক থেকে অন্যান্য কোম্পানি থেকে আলাদা। আমরাই প্রথম বীমা কোম্পানি যারা ই-কেওয়াইসি,  ই-রসিদ এবং কাস্টমার কেয়ার চালু করেছে। আমরা এমটিবি –এর সাথে কো-ব্র্যান্ডেড ডেবিট কার্ড ও চালু করেছি। যে কোনো ধরনের ভুল বোঝাবুঝি এড়াতে আমরা আমাদের গ্রাহকদের কাছ থেকে আগে থেকেই সমস্ত তথ্য যাচাই করি।’

অনলাইনে আমানত সংগ্রহের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা সফল ভাবে নতুন এবং ভিন্ন হওয়ার জন্য সম্মুখীন হওয়া সমস্ত বাধা অতিক্রম করেছি। আমাদের অনলাইন সংগ্রহ উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। আগে ব্যাংক আমানতের তুলনায় অনলাইন সংগ্রহ নামমাত্র থাকলেও এখন অনলাইন থেকে সংগ্রহ প্রায় ৮০শতাংশ।’

সোনালী লাইফ ইন্সুরেন্সের কর্মীদের বিষয়ে মীর রাশেদ বলেন, ‘আমরা আমাদের কর্মীদের একই পরিষেবা বা বিশ্লেষণ প্রদান করার চেষ্টা করেছি যা আমরা আমাদের গ্রাহকদের প্রদান করি। সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স সব সময় তার কর্মীদের দৃষ্টিকোণ থেকে চিন্তা করার চেষ্টা করে। আমাদের কর্মীদের বেশির ভাগই সদ্য স্নাতক পাশ করেছে। সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স সুবিধা, বীমা এবং ভবিষ্যৎ তহবিলের ক্ষেত্রে প্রয়োজন অনুসারে কর্মীদের মধ্যে সন্তুষ্টি তৈরি করার চেষ্টা করে। তাদের কর্মক্ষেত্রে উন্নতি তাদের কাজের উপর নির্ভর করে। যদিও মানুষ এই শিল্পে যোগ দিতে অনিচ্ছুক, কিন্তু আমাদের সেবা সুবিধার কারণে, মানুষ আমাদের কোম্পানির সাথে কাজ করার আগ্রহ দেখিয়েছে।’

বাজেটে বিমা শিল্পের গুরুত্বারোপের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকার বীমা খাতে অনেক বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। সরকার ইতিমধ্যে ১লা মার্চ জাতীয় বীমা দিবস ঘোষণা করেছে। তবে আমি মনে করি, প্রস্তাবিত বাজেটে বীমা শিল্পকে কর্মসংস্থান বৃদ্ধি এবং ট্যাক্স সংক্রান্ত বিষয়ে এখনও এই সেক্টরে অনেক কিছু করা যেতে পারে। আগামী বাজেটে আমরা ভালো কিছুর প্রত্যাশা করছি।’

সোনালী লাইফের সুদীর্ঘ পথচলার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এই ব্যবধান আমাদের কাভার করতে হবে। আমাদের বীমা কোম্পানি একটি উদ্যোগ শুরু করেছে। আশা করি অন্যরাও এগিয়ে আসবে এবং আমরা ব্যবধান কমাতে পারব। উন্নত দেশে বীমা একান্ত প্রয়োজন।

অতএব, তাদের বীমা শিল্পের অবদান জিডিপিতে ব্যাপক। আমরা ট্র্যাকে আছি। সংশ্লিষ্ট সকল ব্যক্তিও প্রতিষ্ঠান একত্রে একই পথে অগ্রসর হলে এখাতের উন্নয়ন হবে। আসন্ন আগস্টে, আমরা আমাদের যাত্রার  ৯ বছর পূর্ণ করব। আমরা ২০১৩ সালে আমাদের যাত্রা শুরু করেছি। আমরা যে লক্ষ্য নিয়ে শুরু করেছি তা নিয়ে আমরা সফলভাবে এবং আত্মবিশ্বাসের সাথে এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের কর্মীর সংখ্যা ৬০০০ ছাড়িয়েছে। গতবছর আমাদের কোম্পানির সামগ্রিক খরচ ছিল ৪৮ শতাংশ।’

সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ভবষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘সোনালী লাইফ শেয়ার হল ক্যাপিটাল মার্কেটে প্রথম ক্যাটাগরির শেয়ার। সারাদেশে আমাদের ১১৭ টির বেশি শাখা রয়েছে। আশা করা যায় যে এই বছর শাখার সংখ্যা ১৩০ ছাড়িয়ে যাবে।

আমাদের মোট সম্পদের ভিত্তি ইতিমধ্যে ৪৩০ কোটি অতিক্রম করেছে। আমাদের গ্রস প্রিমিয়াম টার্গেট ২০২২সালের জন্য ৬৫০ কোটি টাকা। আমরা ইতিমধ্যেই আমাদের ২০২১ সালের লক্ষ্যমাত্রার ৩২০ কোটি টাকা অর্জন করেছি। আমাদের কোম্পানির নবায়ন ভিত্তি শিল্পের সর্বোচ্চ গুলির মধ্যে একটি। নবায়নের শতাংশ বর্তমানে ৮৯, যা প্রমাণ করে গ্রাহকরা তাদের ওপর নির্ভর করছেন। ২০২১ সালে আমাদের ১ম প্রিমিয়াম ছিল ১৯৯ কোটি টাকা। আমাদের অনিরীক্ষিত জীবন তহবিল হল ২৯৮ কোটি যা এই শিল্পের মধ্যে দ্রুত বর্ধনশীল। এটি শুধুমাত্র আমাদের গ্রাহকদের আস্থা এবং সময়মত দাবি নিষ্পত্তি ব্যবস্থার কারণে সম্ভব হয়েছে।’

Kabir Steel Re-Rolling Mills (KSRM)
Rocket New Cash Out
Rocket New Cash Out
BKash Payment
Bkash Payment
বিশেষ সংবাদ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত