?>

বুধবার   ১৪ এপ্রিল ২০২১ || বৈশাখ ২ ১৪২৮ || ০১ রমজান ১৪৪২

অপরাজেয় বাংলা :: Aparajeo Bangla

ভালো মানবসম্পদ কর্মী হওয়ার প্রাথমিক পাঠ

মোঃ জিয়াউল হক

১৩:১২, ২৪ মার্চ ২০২১

আপডেট: ১৩:১২, ২৪ মার্চ ২০২১

২৪২

ভালো মানবসম্পদ কর্মী হওয়ার প্রাথমিক পাঠ

ভালো মানবসম্পদ কর্মী হওয়ার প্রাথমিক পাঠ
ভালো মানবসম্পদ কর্মী হওয়ার প্রাথমিক পাঠ

সব ধরনের প্রতিষ্ঠানেই কর্মী নিয়োগ থেকে শুরু করে কর্মীর অবসরে যাওয়া পর্যন্ত সকল ধরনের কাজ পরিচালনা করার জন্য একটি মানব সম্পদ বা হিউম্যান রিসোর্স বিভাগ থাকে। সঠিক কর্মীকে সঠিক স্থানে পদায়ন করে প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালনা করতে এ বিভাগ ভূমিকা পালন করে। যেকোনো প্রতিষ্ঠানের সুষ্ঠ পরিচালনায় এ বিভাগের গুরুত্ব অপরিসীম।

প্রফেশনাল ক্যারিয়ার হিসাবে হিউম্যান রিসোর্স বর্তমান সময়ে বেশ জনপ্রিয়। যে কেউ লেখাপড়া শেষে নতুন ক্যারিয়ার শুরু করতে চাইলে মানবসম্পদ প্রথম পছন্দ হতে পারে। ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি বা এইচআর এক্সিকিউটিভ হিসাবে কাজ শুরু করে পর্যায়ক্রমে প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ পর্যায়ে যাওয়ার সুযোগ থাকে এখানে। যদি কেউ স্বপ্ন দেখে পড়াশোনা শেষে একজন এইচআর কর্মী হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করবেন, তবে তাকে এ বিভাগের কাজগুলো সম্পর্কে ধারনা থাকতে হবে।

মানবসম্পদ বিভাগের একজন এক্সিকিউটিভ প্রতিষ্ঠানে নতুন কর্মী নিয়োগের পরিকল্পনা করা, নিয়োগ প্রার্থীদের তথ্য যাচাই-বাছাই করা; প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা অনুযায়ী নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা; কর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা; কর্মীদের কোনো সমস্যা হলে তার সমাধানের জন্য উদ্যোগ নেয়া; কর্মীদের ছুটি সংক্রান্ত বিষয়গুলো ব্যবস্থাপনা করা; সকল বিভাগের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করা ও নিয়মকানুনগুলো সঠিক ভাবে পালনে উৎসাহিত করা; কর্মীদের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন বিষয়ে বিভাগীয় প্রধানকে সাহায্য করা; কর্মীদের বেতন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার খেয়াল রাখা; কর্মীদের অভিযোগ গ্রহণ করা ও সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া এবং শৃঙ্খলা মেনে চলতে সবাইকে উৎসাহিত করা সহ বিভিন্ন কাজ করে থাকেন। 

একজন এইচআর কর্মী হিসেবে কাজ শুরু করতে চাইলে প্রাথমিক অবস্থায় বিশেষ কিছু প্রস্তুতি নেয়া জরুরী। প্রস্তুতির অংশ হিসাবে একজন এইচআর কর্মী হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করতে হলে যা করতে হবে- 
 
১. হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট অথবা ব্যবস্থাপনা বিষয়ের উপরে এমবিএ ডিগ্রি থাকা বাধ্যতামূলক। 
২. যদি পড়াশোনার বিষয় ম্যানেজমেন্ট বা এইচআরএম নাও হয়ে থাকে, তবে ম্যানেজমেন্ট থিওরির ব্যাসিক বিষয়গুলো জানতে হবে।
৩. বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এইচআর এর ওপর ৬ মাস বা ১ বছর মেয়াদী শর্ট কোর্স বা ডিপ্লোমা করার সুযোগ থাকে, এর যেকোনো একটি করে নিতে পারলে ভাল।
৪. বাংলাদেশের প্রচলিত শ্রম আইন জানা আবশ্যক।
৫. ইংরেজি ও বাংলা ভাষায় দক্ষতা অর্জন করতে হবে।
৬. হিউম্যান সাইকোলজি বিষয়ক পড়াশোনা এবং জ্ঞান থাকা জরুরি।
৭. সফল এইচআর প্রফেশনালদের সাকসেস স্টোরি ও তার সাকসেস ফর্মুলা স্টাডি করলে সেল্ফ ডেভেলপমেন্ট বাড়বে এবং একই সাথে আইকিউ লেভেলের উন্নতি হবে।
৮. কম্পিউটার লিটারেসি, স্মার্টফোনের ব্যবহার, ভার্চুয়াল মাধ্যমসহ সব ধরনের টেকনোলজির ব্যবহারে দক্ষ হতে হবে।
৯. সোস্যাল মিডিয়াতে জড়িত হওয়া, নেটওয়ার্ক বাড়ান, বিশেষত এইচআর সংশ্লিষ্ট যত সাইট বা প্লাটফরম আছে, সেগুলোর মেম্বার হওয়া, লেখা, অন্যদের লেখা পড়া, লেখার ফিডব্যাক দেয়া, মন্তব্য করা জরুরি, এতে পারস্পরিক জ্ঞানের আদান প্রদান হয়। 
১০. কর্পোরেট পার্সন, বিশেষত এইচআর পার্সোনেলদের সাথে যোগাযোগ রাখতে পারলে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা বিষয়ে জানা যায়।
১১. ধৈর্য্য, অধ্যবসায়, স্থির বুদ্ধি, সহিষ্ণুতা, দুরদৃষ্টি, ইতিবাচক মনোভাব, চ্যালেঞ্জ নেওয়ার মনোভাব এইচআরে কাজ করার জন্য খুব জরুরি।

একজন হিউম্যান রিসোর্স এক্সিকিউটিভের নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পর্কিত জ্ঞান; প্রার্থীদের তথ্য সঠিকভাবে যাচাই-বাছাই করতে পারা; ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দ সরিয়ে রেখে প্রতিষ্ঠানের লাভ ও যোগ্যতার ভিত্তিতে প্রার্থীদের মূল্যায়ন করার দক্ষতা; সিদ্ধান্ত গ্রহণের দক্ষতা; সমস্যা সমাধানের দক্ষতা; যোগাযোগের দক্ষতা; সময় ব্যবস্থাপনা; ইতিবাচক মনোভাব সহ বিভিন্ন ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়। কোনো বই পড়ে কিংবা এমবিএ ডিগ্রি বা ডিপ্লোমা কোর্স করে এগুলো রপ্ত করা যায় না; ট্রেনিং, চর্চা, পড়াশুনা, গবেষণা ও বিশ্লেষনের মধ্য দিয়ে এসব গুণ অর্জন করতে হয়।

লেখক: মানবসম্পদ ব্যবস্থাপক, নেক্সাস টেলিভিশন।

DBBL Nexas Card
TELETALK