শুক্রবার   ২৪ মে ২০২৪ || ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ || ১৪ জ্বিলকদ ১৪৪৫

অপরাজেয় বাংলা :: Aparajeo Bangla

ধারাবাহিক উপন্যাস

বলতে এলাম ভালোবাসি : পলাশ মাহবুব : পর্ব-৪

১৭:১৪, ২ ডিসেম্বর ২০২০

আপডেট: ২১:৩৪, ২ ডিসেম্বর ২০২০

১৩২২

ধারাবাহিক উপন্যাস

বলতে এলাম ভালোবাসি : পলাশ মাহবুব : পর্ব-৪

বলতে এলাম ভালোবাসি

ধারাবাহিক উপন্যাস

পলাশ মাহবুব

পর্ব-৪

৬.
মেয়ের বিয়ে নিয়ে রাত্রির বাবার টেনশনে থাকার কথা না।
কারণ রাত্রি দেখতে গড়পড়তা মেয়েদের মতো না। গড়নে ও চলনে একটু অন্যরকম।
বিয়ের বাজারে যে ধরণের পাত্রির কদর আছে সে ধরণের ‘উঁচা-লম্বা’ সে। তার চুল কোমড়ে আঁছড়ে না পরলেও তা বাতাসে ঢেউ খেলে যায়। তার শরীরের গড়ন নিঁখুত। জোয়ারের পানি বাঁধ ছুঁই ছুঁই করলে আশপাশের মানুষের মধ্যে যেমন এক ধরণের চাপা চাপা টেনশন তৈরি হয়। এই বুঝি উপচে পড়লো। 
রাত্রিকে দেখলেও তাই মনে হয়। উপচানো না, তবে ছুঁই ছুঁই। দেখলে বুকের মধ্যে যেন কেমন করে। একটু শ্যামলা টাইপ হলেও বাড়তি লাবন্য তাতে উজ্জ্বলতা ছড়িয়েছে। যা গড়পড়তা আর দশটা সাধারন মেয়ে থেকে তাকে আলাদা করে। পাঁচটা মেয়ের মধ্যে খুব সহজে রাত্রিকে আলাদা করা যায়।
গড়পড়তার চেয়ে যে মেয়ে আলাদা তেমন মেয়ের বাবাকে কন্যাদায়গ্রস্থ পিতা বলা যায় না। এমন মেয়ের বাবারা পাত্রের সিভিতে শুধু টিক মার্ক দেবেন। তাদের কাজ হচ্ছে ইন্টারভিউ নিতে নিতে ইয়েস অর নো বলা। টেনশন করা তাদের কাজ না।
তবুও রাত্রির বাবা টেনশন করেন। কেন করেন তার কোনও উত্তর নেই। কারণ সোলায়মান সাহেবকে এই প্রশ্ন কখনো কেউ করেনি। প্রশ্ন করার মতো মানুষ বলতে রাত্রির মা। কিন্তু তিনি প্রশ্ন করবেন কি, বাবার প্রশ্নের উত্তর দিতে দিতেই তো তার দিন শেষ। তাছাড়া প্রশ্ন করলেই যে তিনি টেনশন করা ছেড়ে দেবেন সেরকম ভাবার কোনও কারণ নেই।
তবে এমনও হতে পারে সুন্দরি মেয়ে নিয়ে সব বাবা-মায়ের মধ্যেই এক ধরণের অনিশ্চয়তা থাকে।  কারণ তাদের পেছনে অনেকে লেগে থাকে। প্রেম-ভালোবাসার নানা প্রলোভন। সুন্দরি মেয়েদের তাই ভুল করার আশংকা বেশি। এই ভুলের ভয় মা-বাবার মধ্যে এক ধরণের টেনশন তৈরি করে। তারা অনিশ্চয়তায় ভোগেন। এ বিষয়টাও রাত্রির বাবার টেনশনের কারণ হতে পারে।
কারণ রাত্রির পেছনেও অনেকে লেগে আছে।
কেউ প্রকাশ্যে কেউ আড়ালে।
এই তথ্য তারা পুরোটা না জানলেও একেবারে কিছু যে আঁচ করতে পারেন না তেমন ভাবার কোনও কারণ নেই। তাদের চুল তো আর রোদে পাকেনি। পেকেছে অভিজ্ঞতায়।
নিয়মিত বিরতিতে কলেজের ছেলেদের কাছ থেকে প্রেম পত্র পায় রাত্রি। 
যেসব ছেলে প্রেমপত্র লেখে তাদের বেশির ভাগের সাহসের অভাব। বুক ফাটে তো মুখ ফোটে না টাইপ। সরাসরি কথাটা বলতে পারে না তাই চিঠির আশ্রয় নেয়। চিঠির জবাব ইতিবাচক হলে তাদের জবান খোলে। চিঠিতে লেখা কথাগুলো তখন তারা সরাসরি বলে। 
চিঠি লেখা আর জবাব পাওয়া না পাওয়ার মাঝের সময়টায় তারা আরও কিছু কাজ করে। ক্যাম্পাসের গাছে, দেয়ালে এমনকি বাথরুমের মধ্যে নিজের নামের পাশে যোগ চিহ্ন দিয়ে সেই মেয়ের নাম লেখে।
আর চিঠির জবাব ইতিবাচক না হলে এ টাইপ প্রেমিকদের অধিকাংশ নতুন কোনও মেয়েকে চিঠি লেখার প্রস্তুতি নেয়। 
যে সব ছেলে একটু অস্থির টাইপ তারা এসএমএস করে। তাদের হাতে সময় কম। হ্যাঁ কিংবা না যেটাই হোক উত্তরটা তারা তাড়াতাড়ি চায়। নাম্বারের তো অভাব নেই। একটা না হলে আরেকটা। সময় তাদের কাছে খুব ইম্পর্টেন্ট।
তবে সমস্যা হচ্ছে রাত্রির মোবাইল নম্বর খুব অল্প মানুষ জানে। আর যে কজন জানে তারাও মাঝে মধ্যে হোঁচট খায়। কারণ রাত্রির ফোন অনেক সময় তার মা ধরে। ফোনের ব্যাপারে রাত্রি খুব একটা সচেতন না। প্রায়শ সে ভুল করে ফোন বাসায় রেখে যায়। আবার বেশির ভাগ সময় দেখা যায় তার ফোনে চার্জ থাকে না। 
তাই তাকে যারা প্রেমের প্রস্তাব দিতে চায় চিঠি হয় তাদের শেষ ভরসা। না হলে দেখা যাবে এসএমএস পাঠিয়েছে ঠিকই। কিন্তু রাত্রি সেটা খুলেও দেখলো না। পুরো ইনভেস্ট মাটি।
শেষ চিঠিটা রাত্রি পেয়েছে আজ সকালে।
প্রথম ক্লাশ শেষে রাত্রি তার বান্ধবি তৃপ্তির সাথে গিয়েছিলো ওয়াশরুমে। সেখান থেকে ফিরে এসে পরের ক্লাশের লেকচার শিট বের করার সময় চিঠিটা তার হাতে পরে।
ঠিক হাতে না। 
প্রথমে নিচে পড়ে। 
লেকচার শিটের মাঝ থেকে একটা ভাঁজ করা কাগজ ফ্লোরে পড়ে। রাত্রি ভেবেছিলো পিনআপ করা লেকচার শিটের কোনও পাতা হয়তো ছুটে গেছে।
কাগজটা হাতে তোলার পর তার ভুল ভাঙে।
লেকচার শিটের পাতাগুলো ফটোকপি করা। বহু আগের শিট বারবার ফটোকপি করার কারণে লেখা প্রায় অস্পষ্ট। কি লেখা আছে সেটা বোঝার জন্য বেশ মনযোগ দিয়ে পড়তে হয়। অনেক শিটের লেখা বোঝার জন্য কলম দিয়ে ওভার রাইটিং করেছে রাত্রি।
এই কাগজটা সে রকম না। 
মোটা কাগজে জেল পেন দিয়ে লেখা। ছোট ছোট অক্ষরে।
ভাঁজ খোলার পর রাত্রি বিষয়টা বুঝতে পারে।
প্রস্তুতি নিয়ে লেখা চিঠি। 
চিঠির মধ্যে যেসব ভুল আছে সেগুলো ফ্লুইট দিয়ে মোছা হয়েছে। তারপরও কিছু ভুল রয়ে গেছে। সেই ভুল হয়তো পত্র লেখকের অজ্ঞতা।
রাত্রির মুখের দিকে তাকিয়ে চিঠির বিষয়টা ধরতে পারে পাশে বসা বান্ধবি তৃপ্তি।
কারণ প্রেমপত্র পেতে পেতে অস্থির রাত্রির অভিব্যক্তি তৃপ্তির অচেনা না।
তৃপ্তি হাসতে হাসতে বলে, লাভ লেটার নাম্বার ফোরটি ওয়ান। ব্যাগ থেকে একটা নোটবুক বের করে নম্বরটা তাতে টুকে রাখে সে।
কাগজের ভাঁজ খুলে রাত্রি চিঠিটা মন দিয়ে পড়ে। 
সাধারন প্রেম পত্রগুলো যেরকম হয় এই চিঠিটা সে রকম না। 
মাঝারি আকারের চিঠি। কাটা কাটা সেনটেন্স।
পরীক্ষার খাতার মতো তিন দিকে ভাঁজ করে মাঝখানে লেখা। একচল্লিশ নম্বর প্রেমপত্রের ভাষাটাও একটু অন্যরকম। চিঠিতে প্রেমের আবেদনের পাশাপাশি ইতিবাচক সাড়া না পেলে পাল্টা হুমকিও দেয়া আছে।
রাত্রি চিঠিটা আবার পড়ে।

ডিয়ার/প্রিয় রাত্রি,
শুভেচ্ছা নিও।
যে কথা বলার জন্য চিঠিটা লেখা সেটা পুরনো কথা। তারপরও আবার বলি। I Love u। আমি তোমাকে ভালোবাসি রাত্রি। একই কথা বলে এ নিয়ে তোমাকে থার্ড টাইম লিখলাম। কিন্তু তোমার দিক থেকে এখন পর্যন্ত কোনও ছাড়া পেলাম না। প্রথম এবং দুই নম্বর চিঠিতে আমার মোবাইল নম্বর দিয়েছি। বলেছিলাম, আমাকে ফিরতি ও I Love u বলার জন্য এই নাম্বারে ফোন অথবা এছএমএছ করতে। কিন্তু এক মাছেও তোমার দিক থেকে কোনও ছাড়া পেলাম না। তাই শেষ চিঠিটি লিখলাম। শুধু এই কথা জানাতে, আমি তোমার ছাড়ার অপেক্ষায় আছি। চিঠির ছেষে আবারও আমার মোবাইল নম্বর দিয়ে দিলাম। ছাড়াটা সেখানে ফোন অথবা এছএমএছ করে জানাবে।
আর যদি ছাড়া না দাও, তাহলে একটা কথা বলে রাখি এই কলেজের কারও সাথে তুমি প্রেম করতে পারবে না। এমনকি ওই নিদ্রাকুছুমের সাথেও না।
বন্ধু আমার বান্ধবি লইয়া আমার বাড়ির সামনে দিয়া হাঁটাচলা করবে সেটা আমি ছহ্য করবো না। আমি গায়িকা মমতাজ না। তুমি ভালো করেই জানো আমি কে? এবং আমি কি করতে পারি।
তোমার ছাড়ার অপেক্ষায়।

‘ম’

৭.

নে। পড়।
রাত্রি চিঠিটা তৃপ্তির দিকে বাড়িয়ে দেয়।
তৃপ্তি চিঠিটা পড়ে।
তারপর ভাঁজ করতে করতে বলে, পত্র লেখক প্রেমিক তো সাড়া কে ছাড়া লিখে ছাড়খার করে ফেলেছে। ছেলেটি কে রে?
আরে আজব তো, আমি কিভাবে বলবো ছেলেটি কে? আমি কি তাকে ফোন করেছি! না, কখনো আমার সাথে তার দেখা হয়েছে। শুধু নিচে লিখেছে ‘ম’। তো এই ‘ম’ দিয়ে তো অনেক নাম হতে পারে। আর যদি নামের আগের মোহাম্মদ ধরিস তাহলে মুসলমান সব ছেলের নামই তো ‘ম’ দিয়ে শুরু। মোহাম্মদ ওমুক, মোহাম্মদ তমুক।
রাত্রির কথা শুনে তৃপ্তি হাসে।
না, মানে, চিঠিতে তো লিখছে, তুমি ভালো করেই জানো আমি কে? সেজন্য ভাবলাম তুই হয়তো চিনিস।
না, আমি চিনি না। দেখা হওয়ার তো প্রশ্নই আসে না।
তৃপ্তির হাত থেকে চিঠিটা নেয় রাত্রি।
ফোন করে দেখবো নাকি? 
দে তো চিঠিটা। নাম্বারটা নেই। ফোন করে দেখি রোমিওটা কে। এত করে ছাড়া দিতে বলেছে বেচারা।
ব্যাগে রাখা মোবাইল ফোনে হাত দেয় তৃপ্তি। 
কোনও দরকার নেই। পাগলকে সাঁকো নাড়ানোর কথা মনে করিয়ে দেয়ার কোনও দরকার নেই। সব চিঠিতেই এরকম ফোন নাম্বার দেয়া থাকে। চিঠি পড়া শেষ। এখন এটা ছিঁড়ে ফেলার সময় হয়েছে। এবার বল তুই ছিঁড়বি নাকি আমি।
কিন্তু চিঠিতে তো সাড়া দেয়ার কথা বলেছে। সেটার কি হবে?
জবাব না দেয়াটও এক ধরণের সাড়া। নেতিবাচক সাড়া।
কিন্তু রাত্রি, এই চিঠিটা তো অন্যগুলোর মতো না। রীতিমতো হুমকি দিয়েছে। কে হতে পারে? দে না চিঠিটা, দেখি।
রাত্রির কাছ থেকে তৃপ্তি আবার চিঠিটা নেয়।
‘ম’।
এতো সাহসি ছেলে কিন্তু পুরো নাম লেখার মুরোদ নেই। ‘ম’ দিয়ে নাম . . .কে হতে পারে? মুরাদ নাতো? নাকি মহিউদ্দিন, মনজুর।
আরে ওরা তো ভালো ছেলে। ওরা আমাকে চিঠি দিতে যাবে কেনো?
বাদ দে। তোর এতো গবেষনা করার দরকার নেই। যে খুশি সে হোক। তার চিঠি লেখার ইচ্ছা হইছে সে লিখছে। আমরা পড়েছি। এখন আমাদের কাজ হচ্ছে চিঠিটা ছিঁড়ে ফেলা। কে লিখেছে সেটা নিয়ে সময় নষ্ট করা আমাদের কাজ না। আর ভালো ছেলেগুলোকেও এর মধ্যে টেনে এনে লাভ নেই।
মহিউদ্দিন আর মনজুরের নাম রাত্রি হেসে উড়িয়ে দেয়।
আরে হাসিস না। ছেলেদের কোনও বিশ্বাস নাই। আর ভালো পোলাগুলাই এই কাজ বেশি করে। মুখে বলার সাহস নাই একপাতা লাভ লেটার লেইখা ব্যাগের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয়। বাসার গেটের সামনে গোলাপ ফুলের তোড়া রাখে। আরে ব্যাটা প্রেম করবি তো সাহস কইরা সামনাসামনি বল। ফেইস টু ফেইস। ব্যাটে বলে মিললে হবে। না হলে নাই। বুকে সাহস নাই প্রেম করার গোসাই। এই ধরণের পোলাগুলারে দেখলেই শরীরটা জ্বলে। মেনি বিলাই একেকটা। নখ আছে কিন্তু খামচি দেয়ার সাহস নাই।
তাই বলে, মনজুর বা মহিউদ্দিন এ কাজ করতে যাবে কেন! তাছাড়া চিঠির মধ্যে হালকা-পাতলা-হুমকিও আছে। ওদের অতো সাহস নাই। আমার মনে হয় অন্য কেউ কাজটা করেছে।
তাইলে কে হইতে পারে? 
বাবুল?
প্রশ্ন করে উত্তরের অপেক্ষা করেনা তৃপ্তি। নিজেই নামটা বলে।
তুই যে কিসব বলছিস না তৃপ্তি। বাবুল ভাই আমাকে চিঠি লিখতে যাবে কোন দুঃখে। ওনার এত সময় কই। উনি তো স্যারদের কলার আর ছেলেদের বোতাম নিয়ে ব্যস্ত। তাছাড়া, উনিতো শুনছি বিবাহিত। তিন বছরের ছেলেও আছে একটা। 
অ। তাও তো কথা। তবে বিবাহিত বলে লিস্টি থেকে নাম কাটার সুযোগ নাই। বিবাহিত গুলান খাচ্চর দি গ্রেট। স্কুলেও পড়ায় আবার টিউশনিও করায়।
মানে কি!
আরে বিবাহিত মাত্র এক ঢিলে দুই পাখি মারনের ধান্দায় থাকে। যদি লাইগ্যা যায় আরকি।
আচ্ছা বুঝছি। শোন, আমার একজনকে সন্দেহ হয়।
কে, কে?
আগ্রহ নিয়ে রাত্রির দিকে আরেকটু চেপে এসে জানতে চায় তৃপ্তি।
কলেজে আসা-যাওয়ার পথে একটা ছেলে প্রায় সময় আমাকে ফলো করে। পিছন পিছন আসে। কিন্তু কিছু বলে না।
কি নাম?
নামটা তো ঠিক জানি না। তবে বাবুল ভাইয়ের সাথে ঘুরতে দেখেছি। মনে হয় বাবুল ভাইয়ের দলের ছেলে।
বলিস কি! জামা পড়ে নাকি টি-শার্ট?
টি-শার্টই তো মনে হলো। অত খেয়াল করে দেখেছি নাকি।
তাইলে তো বাবুলের ছেলে। বোতাম কেসের কারণে তার চামচারা জামা পড়ে না। দেখলি তো আমার কথাই ঠিক। বাবুল না, কিন্তু বাবুলেরই তো লোক। হয়তো ওস্তাদের পক্ষে চিঠি লিখছে।
হুমম। কিন্তু ওই ছেলে চিঠিতে নিদ্রাকুসুম স্যারের কথা লিখে কি বোঝাতে চাইল?
রাত্রিকে কিছুটা চিন্তিত মনে হয়।
কিরে রাত্রি তলে তলে এতদূর। কিছুই টের পেলাম না। তা স্যারও কি তোকে চিঠি লিখেছিলো? সেটা কত নাম্বার চিঠি ছিলো! কিছু তো বললি না। নাকি এ যাত্রায় তুই-ই লিখেছিস। তাইতো বলি সবাই যখন স্যারকে নিয়ে মজা করে তখন তুই মুখ গোমড়া করে থাকিস কেন। এইবার বুঝলাম ঘটনা। খুব কষ্ট পেলাম রে। আমি তোর এত কাছের। সেই আমিই কিছু জানলাম না।
তৃপ্তি, ভালো হচ্ছে না কিন্তু।
রাত্রি কপট রাগ দেখায়।
হাসতে হাসতে রাত্রির গায়ের ওপর গড়িয়ে পড়ে তৃপ্তি।
ও। তোমার করায় দোষ নেই। আর আমি বললেই দোষ। নিদ্রাকুসুম স্যার কিন্তু খারাপ না। আমার ভালোই লাগে। এই টাইপের মানুষ জামাই হিসেবে পারফেক্ট।
ধ্যাৎ, কি বলিস এসব। দে তো চিঠিটা দে।
তৃপ্তির হাত থেকে চিঠিটা নেয়ার চেষ্টা করে রাত্রি।
কেন? চিঠি দিয়ে কি করবি?
কি করবো আবার। লেমিনেটিং করে বাসার দেয়ালে টানিয়ে রাখবো। ভুল হয়েছে। আগের চিঠিগুলোও লেমিনেটিং করে রাখা উচিত ছিল। সবগুলো মিলে একটা প্রদশর্নী করা যেত।
যাই বলিস, এই চিঠিটা কিন্তু লেমিনেটিং করেই রাখা দরকার। এটা অন্য চিঠিগুলোর মতো না। এই চিঠি ছেঁড়া যাবে না। এইটা এভিডেন্স।
এভিডেন্স মানে! এটা দিয়ে তুই কি করতে চাস?
আমি কিছু করবো না। যা করার জামান ভাই করবে।
জামান ভাই! জামান ভাই আবার কে!
আরে আমার ফুপাতো ভাই। তোর সাথে না একদিন পরিচয় করিয়ে দিলাম। র‌্যাব-২ এ আছে। 
তা ওনাকে চিঠি দিবি কেন?
জামান ভাইকে দেব কারণ তোর পক্ষ থেকে এই নাম্বারে ফোনটা উনি করবেন। তারপর পত্র লেখকের চৌদ্দগুষ্টির নাম ঠিকানা বের করে ফেলবে। বাপ-চাচাদের মধ্যে আগে কারা কারা মেয়েদের প্রেম পত্র লিখেছে সেই হিস্ট্রিও চাইলে জানা যাবে। চাইলে কে কয়টা করে লিখেছে সে হিসাবও জানতে পারবি। সবকিছু জানার পর তুই ছেলেটাকে দেখবি। দেখে পছন্দ হলে প্রেম করবি না হলে ডিসকলি। সেই ছেলে তখন র‌্যাবের সাথে প্রেম করবে। র‌্যাবের প্রেমে বড় জ্বালা।
হাসতে হাসতে কথাগুলো বলে তৃপ্তি।
রাত্রি তৃপ্তির মুখের দিকে তাকিয়ে থাকে। এই মেয়ে পারেও। সবকিছু নিয়ে ফান।
ওভাবে তাকিয়ে আছিস কেনো!
একটা সিরিয়াস বিষয় নিয়ে তুই ফান করছিস তাই তাকিয়ে আছি। 
ফান করছি মানে! র‌্যাব কি ফান করার জিনিস। কালো ড্রেস দেখলেই তো আমার ভয় লাগে। শোন তোকে একটা ঘটনা বলি। 
রাত্রি তৃপ্তির ঘটনা শুনতে আগ্রহি হয় না। সে অন্যদিকে তাকিয়ে থাকে।
আরে শোন না। শুনলে বুঝতে পারবি র‌্যাব কি জিনিস। 
আমার চাচাতো বোন শিলার ঘটনা। শিলা হলো জামান ভাইয়ের মামাতো বোন। তো এই শিলাকে একটা নাম্বার থেকে কে জানি একটু পরপর এসএমএস পাঠাতো। একেবারে নিউজ আপডেটের মতো। এসএমএসে নানা টাইপ পিরিতের আলাপ। কবে কোন ড্রেসে কেমন লাগছে- কোন জামাটা বেশি টাইট হয়ে গেছে। শিলার কোনদিনের ড্রেসআপ দেখে তার মন খারাপ হইছে এই টাইপ কথা। কিন্তু ফোন দিলে আবার ফোন ধরে না। মোবাইল কোম্পানির কাছে কমপ্লেইন করে নাম-ঠিকানা পাওয়া গেল না। মা-বাপ নাই।
মা-বাপ নাই মানে?
মানে আনরেজিস্টার্ড নাম্বার। ফুটপাত থেকে সিম কিনছে।
ও।
কি আর করা। শেষে জামান ভাইকে জানানো হলো। দুইদিন পরের ঘটনা। জামান ভাই এক ছেলের ঘাড়ে ধরে শিলাদের বাসায় হাজির। যে নাম্বার থেকে এসএমএস পাঠানো হতো সেই সিম ওই ছেলের ফোনে পাওয়া গেছে। জামান ভাই ট্র্যাক করে বের করেছে।
জানিস ছেলেটা কে? শুনলে তুই বিশ্বাস করবি না।
কে? বাবুল নাতো আবার!
হাসতে হাসতে রাত্রি বলে।
আরে ধুর। শিলারা যে এপার্টমেন্টে থাকে সেখানকার দুই কেয়ারটেকারের একটা। আমি তো পুরাই টাসকি।
বলিস কি! তাই নাকি। মাইগড।
জ্বি। সো, এই কেসে জামান ভাই-ই হতে পারে আমাদের আলটিমেট চয়েজ। শুধু তার হাতে চিঠিটা দেব। দ্ইু দিনের মধ্যেই রোমিওকে তোর সামনে নিয়ে আসবে। ঘাড়ে ধরবে আনবে না কানে ধরে আনবে সেটা অবশ্য তার ব্যাপার।
না রে। এসব ঝামেলা করে লাভ নেই। এমনিতেই বাবা আমার বিয়ে দেয়ার জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন। তারপর যদি এই খবর শোনেন তাহলে আমার কলেজে আসাও বন্ধ হয়ে যাবে। যারা চিঠি লিখছে লিখতে থাকুক। ওসব গায়ে মেখে লাভ নেই।
কিন্তু তাই বলে . . .
তৃপ্তি কিছু একটা বলতে যাচ্ছিল তখনই ক্লাশে স্যার ঢোকেন।
একচল্লিশ নম্বর প্রেম পত্রটা তৃপ্তি তার খাতার নিচে চালান করে দেয়।
রাত্রিদের এখনকার ক্লাস ‘আন্তর্জাতিক সম্পর্ক’।

চলবে...

আগের পর্ব পড়ুন

বলতে এলাম ভালোবাসি : পলাশ মাহবুব : পর্ব-৩

বলতে এলাম ভালোবাসি : পলাশ মাহবুব : পর্ব-২

বলতে এলাম ভালোবাসি : পলাশ মাহবুব : পর্ব-১

Kabir Steel Re-Rolling Mills (KSRM)
Rocket New Cash Out
Rocket New Cash Out
bKash
Community Bank