শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ || ২১ মাঘ ১৪২৯ || ১০ রজব ১৪৪৪

অপরাজেয় বাংলা :: Aparajeo Bangla

শুক্রবার কলকাতায় উদ্বোধন হচ্ছে ‘বাংলাদেশ বইমেলা’

অপরাজেয় বাংলা ডেস্ক

২১:৪৪, ১ ডিসেম্বর ২০২২

আপডেট: ২১:৪৬, ১ ডিসেম্বর ২০২২

৩১৮

শুক্রবার কলকাতায় উদ্বোধন হচ্ছে ‘বাংলাদেশ বইমেলা’

আগামীকাল ২ ডিসেম্বর কলকাতার কলেজ স্কোয়ারে শুরু হচ্ছে ‘বাংলাদেশ বইমেলা কলকাতা ২০২২’। বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির উদ্যোগে, রপ্তানী উন্নয়ন ব্যুরো, বাংলাদেশ-এর সহযোগিতায় এবং কলকাতাস্থ বাংলাদেশ ডেপুটি হাই কমিশনের ব্যবস্থাপনায় এই মেলা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। 

দশ দিনব্যাপী (২-১১ ডিসেম্বর) এই বইমেলা উদ্বোধন করবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি। প্রধান অতিথি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিদ্যালয় ও উচ্চ শিক্ষা মন্ত্রী ব্রাত্য বসু। সভাপতিত্ব করবেন কলকাতাস্থ বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনের উপ-হাইকমিশনার আন্দালিব ইলিয়াস। বাংলাদেশের প্রবাসী ছাত্রছাত্রীদের জাতীয় সংগীত পরিবেশনা এবং পশ্চিম বঙ্গের লোকনৃত্য ‘রণপা’র মধ্য দিয়ে বইমেলার উদ্বোধন হবে।

এবারের ‘বাংলাদেশ বইমেলা কলকাতা’ উৎসর্গ করা হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির উদ্দেশে। আর প্রথমবারের মতো মেলাপ্রাঙ্গণে স্থাপন করা হবে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’। বইমেলায় থাকছে ৭৫টি স্টল। প্রতিদিন মেলার মঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে আবৃত্তি, স্বরচিত কবিতা পাঠ, লেখক-প্রকাশক-পাঠক মুখোমুুখি, নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং সংগীত পরিবেশনা। এছাড়া থাকবে সেমিনার। এখানে অংশগ্রহণ করবেন বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের স্বনামধন্য কবি ও লেখকেরা।

সেমিনারে অংশগ্রহণ করবেন বাংলাদেশের মুনতাসীর মামুন, সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, মফিদুল হক, রামেন্দু মজুমদার, মামুনুর রশীদ, আনিসুল হক, আবু হেনা মোরশেদ জামান, জাকির তালুকদার, কামাল চৌধুরী, তারিক সুজাত, সুভাষ সিংহ রায়, চৌধুরী শহীদ কাদের, আশরাফ আহমদ, আসলাম সানী, নাসরীন জাহান, মজিদ মাহমুদ, রাম চন্দ্র দাস, সুভাশীষ ভৌমিকসহ লেখক-কবি ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বরা। 

অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গের লেখক-কবি-সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের মধ্যে রয়েছেন ড. পবিত্র সরকার, দেবশঙ্কর হালদার, স্বপ্নময় চক্রবর্তী, অমর মিত্র, জয় গোস্বামী, ত্রিদিব কুমার চট্টোপাধ্যায়, সুধাংশু শেখর দে, প্রচেত গুপ্ত, সুবোধ সরকার, মুদুল দাশগুপ্ত, স্নেহাশিস শুর, ডাঃ শিবাজী বসু, অংশুমান ভৌমিক, ড. ইমানুল হক, ড. বরেন্দু মণ্ডল, ড. ইমন কল্যাণ লাহিড়ী, কৌশিক বন্দ্যোপাধ্যায়, নবনীতা বসু হক, শ্যামল চক্রবর্তী, চুমকি চট্টোপাধ্যায়, তিলোত্তমা মজুমদার, চন্দন সেন, মেঘনাথ ভট্টাচার্য, কিশোর সেনগুপ্ত, মানস ঘোষ, বীথি চট্টোপাধ্যায়, বিপ্লব বন্দ্যোপাধ্যায়, মলয় রক্ষিত। ৬ ডিসেম্বর ‘একান্ন পেরিয়ে বাংলাদেশ : শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতি’ সেমিনারে বক্তব্য রাখবেন নরওয়ের ওসলো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আরিল এঙ্গেলসেন রুড।

মেলা মঞ্চে সংগীত পরিবেশন করবেন বাংলাদেশ ও পশ্চিম বঙ্গের শিল্পীরা। এদের মধ্যে আছেন শামা রহমান, মেহের আফরোজ শাওন, কমলিকা চক্রবর্তী, মোমিন বিশ্বাস, দিঠি আনোয়ার, প্রতুল মুখোপাধ্যায়, তাপস মৌলিক, সোমালী পাণ্ডা, তীর্থ, সুপান্থ বসু, মালবিকা চক্রবর্তী। বাংলা ব্যান্ড উজান, মনভাষা, সহজ মানুষ। 

‘বাংলাদেশ বইমেলা কলকাতা ২০২২’-এর পর্দা নামবে ১১ ডিসেম্বর। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন নাট্যজন, সাবেক সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি। সম্মাননীয় অতিথি কবি কামাল চৌধুরী। আর বইমেলার অনুষ্ঠানমালা উপস্থাপন করবেন স্বনামধন্য আবৃত্তিশিল্পী বাংলা একাডেমির উপপরিচালক ড. শাহাদাত হোসেন নিপু।

‘বাংলাদেশ বইমেলা কলকাতা’র যাত্রা শুরু হয়েছিল ২০১১ সালে, গগনেন্দ্র সংগ্রহশালায়। তিন বছর অনুষ্ঠিত হওয়ার পর এটি উন্মুক্ত প্রাঙ্গণে, রবীন্দ্রসদনের খোলা চত্বরে, বৃহৎ পরিসরে স্থানান্তরিত হয়। আর এই সময় অর্থাৎ ২০১৪ সাল থেকে মেলায় যোগ হয় নতুন মাত্রা। শুধু বইয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে সেমিনার ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এটি সাংস্কৃতিক মিলনমেলায় পরিণত হয়।

তিন বছর রবীন্দ্রসদনে অনুষ্ঠিত হওয়ার পর ২০১৭ সালে বইমেলা স্থানান্তরিত হয় মোহরকুঞ্জে। ২০১৯ পর্যন্ত পরপর তিনবার সেখানে এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়। গত দুবছর বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে এই মেলা আয়োজন করা সম্ভব হয় নি। ধারাবাহিকভাবে এই বইমেলা আয়োজনের ফলে সেখানে বাংলাদেশের বইয়ের চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে, বাংলাদেশের লেখকদের পরিচিতি বাড়ছে, একই সঙ্গে প্রসার হচ্ছে বাংলাদেশের বইয়ের বাজার। তাই এই বইমেলার গুরুত্ব অপরিসীম। এবারের মেলাকে কেন্দ্র করে কলকাতার লেখক-পাঠক ও সংস্কৃতিকর্মীদের মাঝে ইতিমধ্যে ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ করা গেছে।

Kabir Steel Re-Rolling Mills (KSRM)
Rocket New Cash Out
Rocket New Cash Out
BKash CA