বৃহস্পতিবার   ১৭ জুন ২০২১ || ৪ আষাঢ় ১৪২৮ || ০৫ জ্বিলকদ ১৪৪২

অপরাজেয় বাংলা :: Aparajeo Bangla

নিরাপদ ভ্রমণ মানেই আকাশ পথ

মো. কামরুল ইসলাম

১৫:০৪, ২৩ মে ২০২১

২২৩

নিরাপদ ভ্রমণ মানেই আকাশ পথ

বিশ্বে এভিয়েশন মানেই ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য নিরাপদ ভ্রমণ। মাঝে মাঝে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে বিমান দূর্ঘটনার খবর শিরোনাম হয়ে আসে। তখন ব্যাথিত হই। চিন্তার ভাঁজ কপালে ফুটে উঠে। সারা বিশ্বে প্রতিদিন প্রায় লক্ষাধিক বাণিজ্যিক ফ্লাইট, কার্গো ফ্লাইট, বিভিন্ন সামরিক বাহিনীর আন্তসংযোগ ফ্লাইট, ব্যক্তিগত ফ্লাইট, ট্রেনিং ফ্লাইট, হেলিকপ্টারসহ নানা রকম ফ্লাইট পরিচালিত হয়। পৃথিবীর প্রায় দুই তৃতীয়াংশ এয়ারক্রাফট সবসময়ই আকাশে থাকে। বিপরীত চিত্রও দেখতে পেয়েছি, মহামারি করোনায় শতভাগ এয়ারক্রাফটও গ্রাউন্ডে দেখতে পেয়েছি, যেমন এভিয়েশন শিল্পের জন্য অস্বাভাবিক চিত্র তেমন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের জন্যও একই অবস্থা। কোনো দেশের বিমানবন্দরই শতভাগ এয়ারক্রাফটের জন্য অবকাঠামো তৈরি করেনি। 

বিমান ভ্রমণ যে নিরাপদ তা কোনো মনগড়া বক্তব্য নয়, বিমান চলাচল শুরু হওয়ার পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত নানা তথ্য উপাত্তের উপর ভিত্তি করেই বলার সুযোগ আছে। গত দশ বছরে গড়ে প্রতি ১০ লক্ষ ফ্লাইট পরিচালনা করার পর ১.৭১ ফ্লাইট দূর্ঘটনায় পতিত হয়েছিলো। যা যেকোনো পরিবহনের তুলনায় অনেক বেশি নিরাপদ।

সর্বশেষ ৭০ বছরের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় বিশ্বে বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা শুরু হওয়ার পর ২০১৭ সালে একটিও বাণিজ্যিক ফ্লাইট দূর্ঘটনায় পতিত হয় নাই। ২০১৭ সালই বিমান পরিবহনের ইতিহাসে সবচেয়ে নিরাপদ বছর হিসেবেই স্বীকৃত। ২০১০ সালের পর সারা বিশ্বে ৯৪ টি বিভিন্ন এয়ারলাইন্স ১০৯টি দূর্ঘটনায় পতিত হয় এবং ৩,৯৩০ জন যাত্রী ও ক্রুদের জীবনহানি ঘটে। ২০১৪ সালে ২২ টি দূর্ঘটনায় ৯৯২ জন যাত্রী ও ক্রু নিহত হন। পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত দশ বছরে ১০টি এয়ারলাইন্সের ১৩টি দূর্ঘটনা ও একটি নিরুদ্দেশ হওয়ার পর মোট ২০৮০ জন যাত্রী ও ক্রুকে চির বিদায় জানাতে হয়। এর মধ্যে একক দেশ হিসেবে নেপালে সর্বোচ্চ ৯টি দূর্ঘটনায় ১৪৭ জন নিহত হন। 

২০১৭ সালের পর ২০১৮ সালকেও এভিয়েশনে একটি নিরাপদ বছর হিসেবে গন্য করা হয়। যদিও পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় দূর্ঘটনার সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। সারাবছর সারা বিশ্বে মাত্র ১৫টি ছোট-বড় বিমান দূর্ঘটনা সংগঠিত হয় এবং ৫৫৬ জন নিহত হন। তেমনিভাবে ৭৪ বছরের ইতিহাসে ২০১৯ সালকেও এভিয়েশনে নিরাপদ বছর হিসেবে মনে করা হয়। এ বছর মাত্র ২০টি দূর্ঘটনায় ২৮০ জন নিহত হন।

২০২০ সাল দূর্যোগপূর্ণ মহামারি করোনার কবলে নিষ্পেষিত সারাবিশ্বের এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রি। করোনার কারনে অনেকটা লকডাউন অবস্খায় ৪০টির মতো দূর্ঘটনা সংগঠিত হয়। এর মধ্যে বড় আকারের ৫টি দূর্ঘটনা ঘটে এবং এসব দূর্ঘটনায় ২৯৯ জন হতাহত হন। চলতি বছর মে মাস পর্যন্ত তিনটি দূর্ঘটনা ঘটে। যার সর্বশেষ দূর্ঘটনায় নাইজেরিয়ার সেনাবাহিনী প্রধানসহ ১০জন নিহত হন।

গত দশ বছরে এশিয়ানা এয়ারলাইন্স এবং মারপাতি নুসানতারা এয়ারলাইন্স দু’টি সর্বোচ্চ সংখ্যক তিনটি করে দূর্ঘটনায় পতিত হয়ে মোট ছয়টি দূর্ঘটনায় মোট ৩০ জন নিহত হন।

গত এক দশকে ২০১৪ সালে আমস্টারডাম থেকে কুয়ালালামপুরে মালয়শিয়া এয়ারলাইন্স এর একটি বাণিজ্যিক ফ্লাইট ৪০ হাজার ফুট উপরে ইউক্রেন-রাশিয়া সীমানার আকাশসীমায় ভূমি থেকে ক্ষেপনাস্ত্র নিক্ষেপ করে ভূপাতিত করে, ফলে ২৮৩ জন যাত্রী ও ১৫ জন ক্রু নিহত হন। যা অত্যন্ত দুঃখজনক, একটি যাত্রীবাহী বাণিজ্যিক ফ্লাইটকে কেনো ভূপাতিত করা হলো এর সঠিক কারন এখনো উদঘাটিত হয়নি।  একই বছর কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং এ যাওয়ার সময় মালয়শিয়া এয়ারলাইন্স এর এমএইচ ৩৭০ এয়ারক্রাফটটি ২৩৯ জন যাত্রী ও ক্রু নিয়ে নিরুদ্দেশ হয়। যা আজও বিশ্ব এভিয়েশনের কাছে অনেকটা ধাঁধাঁ-র মতো। এর কোনো হদিস এখনো মেলেনি।    

১৯৭০ সালের পর ২০১৯ সাল পর্যন্ত প্রতি এক মিলিয়ন ফ্লাইটে ১২ গুন দূর্ঘটনা হ্রাস পায়। গানিতিক হিসেবে প্রতি মিলিয়নে ৬.৩৫ থেকে ০.৫১ -এ নেমে আসে। আবার হতাহতের সংখ্যা বিচারে ৮১ গুন হ্রাস পায়। যা ১৯৭০ সালের প্রতি ট্রিলিয়নে ৩২১৮ থেকে নেমে ৪০ নেমে আসে। দূর্ঘটনা ও হতাহতের সংখ্যা বিচারে বর্তমানে বিমান পরিবহন যেকোনো সময়ের তুলনায় অনেক বেশী নিরাপদ।

গত ৭০ বছরে পৃথিবীর একমাত্র এয়ারলাইন্স কানতাস এর এক্সিডেন্টাল রেকর্ড শূন্যের কোঠায়। যা নিরাপদ এয়ারলাইন্স হিসেবে পথপ্রদর্শকের ভূমিকা পালন করছে। এয়ারলাইন্সরেটিংস ডট কম এর জরিপে ৩৮৫টি এয়ারলাইন্স এর মধ্যে কানতাস এয়ারলাইন্স নিরাপদ এয়ারলাইন্স হিসেবে সর্ব শিখরে অবস্থান করছে। বিশ্বের নিরাপদ এয়ারলাইন্স এর তালিকায় আছে কাতার এয়ারওয়েজ, এমিরাটস, ব্রিটিশ এয়ারওয়েজসহ বিখ্যাতসব এয়ারলাইন্সগুলো।  

বাংলাদেশের আকাশপথ ও আকাশ পরিবহনও অনেক বেশি নিরাপদ। স্বাধীনতার পর গত ৫০ বছরের ইতিহাসে ছোট বড় কয়েকটি দূর্ঘটনা ঘটলেও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স যথাক্রমে ১৯৮৪ সালে ঢাকায় ও ২০১৮ সালে কাঠমান্ডুতে দূর্ঘটনায় পতিত হয়।  ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে চট্টগ্রামের হযরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পাইলটের সচেতনতায় ইউএস-বাংলার এয়ারক্রাফটকে বড় ধরনের দূর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা করে শতাধিক যাত্রীদের জীবন বাঁচিয়ে বীরত্বও দেখিয়েছেন।          

১৭ই ফেব্রুযারি ২০১৪, ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি যাত্রীবাহী বিমান কো-পাইলট কর্তৃক অপহৃত হয়। বিমানটি আদ্দিস আবাবা থেকে ইতালির মালপেনসাতে যাচ্ছিল। বিমানটিতে ১৯৩জন যাত্রী ও ৯ জন ক্রু ছিলেন। বিমানটিকে কো-পাইলট জেনাভাতে জোরপূর্বক অবতরণ করতে বাধ্য করে। অনেক নাটকীয়তার পর সকল যাত্রী ও ক্রুরা নিরাপদে মুক্ত হন। আবার সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ বিমানের একটি আন্তর্জাতিক ফ্লাইটও অবরুদ্ধ হওয়ার ঘটনা ঘটেছিলো। এ ধরনের কিছু ঘটনা এভিয়েশনে বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসেবেই দেখা হয়।  

১১ আগস্ট ২০১৪, কলকাতার মধ্য আকাশে জামশেদপুর জেলায় ভূমি থেকে ৩২০০০ ফুট উচ্চতায় পাইলটের সচেতনতা ও দক্ষতার কারনে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেড ও সৌদি এয়ারলাইন্স এর বিমান মুখোমুখি সংঘর্ষ পরিহার করা সম্ভব হয়। যাতে বেঁচে যান কয়েক শত যাত্রী। 

সাম্প্রতিক সময়ে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা আর ধারাবাহিকভাবে বিমান পরিবহনে দূর্ঘটনা হ্রাস পাওয়ায় হতাহতের সংখ্যা কমায় বিমান পরিবহন বর্তমানে যে কোনো সময়ের তুলনায় নিরাপদ ভ্রমণ হিসেবে পরিগনিত হচ্ছে। বাস্তবতার নিরিখে সারাবিশ্বের এভিয়েশন যাত্রীদের নিরাপদ ভ্রমনে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। 

পরিশেষে তথ্য উপাত্ত বিবেচনায় বলা যায় “নিরাপদ ভ্রমণ মানেই বিমান পরিবহন”। 

লেখক: মোঃ কামরুল ইসলাম, মহাব্যবস্থাপক- জনসংযোগ, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স

Dutch-Bangla Bank
TELETALK