শুক্রবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০২২ || ২৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯ || ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

অপরাজেয় বাংলা :: Aparajeo Bangla

দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর ৮ম প্রধান কারণ সড়ক দুর্ঘটনা 

হীরেন পণ্ডিত

১২:০৮, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

৪৯৫

দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর ৮ম প্রধান কারণ সড়ক দুর্ঘটনা 

সড়ক দুর্ঘটনা বিশ্বব্যাপী মানুষের মৃত্যু ও ইনজুরির অন্যতম প্রধান কারণ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক প্রকাশিত ‘গ্লোবাল স্ট্যাটাস রিপোর্ট অন রোড সেইফটি ২০১৮’- এর তথ্য মতে, বিশ্বে প্রতিবছর প্রায় ১০ লক্ষ ৩৫ হাজার মানুষের মৃত্যু হয় সড়ক দুর্ঘটনায়। এছাড়া ২০-৫০ লক্ষ মানুষ বিভিন্ন মাত্রায় আহত হয় বা প্রতিবন্ধী হন। সকল বয়সের মানুষের ক্ষেত্রে দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর ৮ম প্রধান কারণ হলো সড়ক দুর্ঘটনা । এছাড়া ৫-২৯ বছর এবং আরও কমবয়সী শিশুদের জন্য এটি মৃত্যুর প্রধান কারণ হিসেবেও চিহ্নিত হয়েছে। প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয় যে, বিশ্বব্যাপী শতকরা ৯০ ভাগ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশ সমূহে যার সংখ্যা উন্নত দেশসমূহের তুলনায় তিনগুন বেশী। দক্ষিণ এশিয়ার দেশসমূহের মধ্যেও সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের চিত্র অনেকটা একই রকম। প্রতিবেদনের তথ্য মতে বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিবছর মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় ২৫ হাজার, পাকিস্তানে প্রায় ২৭ হাজার এবং ভারতে প্রায় ৩ লক্ষ। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী প্রায় ১.৩ মিলিয়ন মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করেন। সড়কে মৃত্যুর মিছিল বাংলাদেশেও নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ২০২০ সালে নিরাপদ সড়কের দাবিতে ব্যাপক ছাত্র বিক্ষোভ সত্তে¡ও পরিস্থিতি নাটকীয়ভাবে পরিবর্তিত হয়নি। কিন্তু এসব সড়ক দুর্ঘটনায় যে প্রাণ হারায়, তাদের জীবনের প্রকৃত মূল্য কী? কিংবা যারা সারাজীবনের জন্য প্রতিবন্ধী হয়েছেন তাদের কষ্টের আর্থিক মূল্য কী? টাকার অঙ্কে অনেকেই এই হিসাবটা করতে চাইবেন না। তবে সড়ক দুর্ঘটনায় মোট কত টাকার ক্ষতি হয়েছে তা বাংলাদেশে সরকারি জরিপে ধরা হয়েছে।

জীবন অমূল্য, জীবনের মূল্য বের করা সম্ভব নয়, তবে কিছু বিশেষ মানুষ আছে যাদের অকাল মৃত্যু দেশের অপূরণীয় ক্ষতি করেছে। একজন ডাক্তার, একজন শিক্ষক, একজন প্রকৌশলী, একজন ব্যবসায়ী, একজন সেলিব্রেটি যারা বিভিন্ন ক্ষেত্রে উজ্জ্বল নক্ষত্র হয়ে দেশের উন্নয়নে অবদান রেখেছেন, এটা শুধু সময়ের ব্যাপার নয়, এর দ্বারা সৃষ্ট শূন্যতা পূরণ করা সম্ভব নয়। তাদের একজনের মৃত্যু। একজন মেধাবী ও অসীম প্রতিশ্রুতিশীল ছাত্রের মৃত্যু, যিনি ভবিষ্যতে দেশকে নেতৃত্ব দেবেন, দেশের অগ্রযাত্রাকেও বাধাগ্রস্ত করে। একজন শ্রমিকের মৃত্যু দেশের অর্থনীতিতেও আঘাত করে। প্রায় প্রতিদিনই দেশের কোনো না কোনো স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় উৎপাদনশীল খাতে নিয়োাজিত শ্রমজীবী ও বিশেষ শ্রেণির মানুষ মারা যাচ্ছে। মৃতের সংখ্যা এতটাই অস্বাভাবিক হারে বেড়েছে যে তা দেশের অর্থনীতি ও অগ্রগতির পাশাপাশি উদ্বেগের লক্ষণ হয়েছে দাঁড়িয়েছে।

দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিবছর গড়ে ৫ থেকে ৬ হাজার মানুষ মারা যায়। রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের মতে, ২০২১ সালে সারা দেশে মোট ৫,৩৮১টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। কমপক্ষে ৬,২৬৪ জন মানুষ নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৬ হাজার ৪৬ জন। এর মধ্যে ২ হাজার ৬৬টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে ২,২১৪ জন নিহত হয়েছেন, যা সড়ক দুর্ঘটনায় মোট মৃত্যুর ৩৫.২৩ শতাংশ। এছাড়া বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় এক হাজার ৫২৩ জন পথচারী নিহত হয়েছেন, যা মোট মৃত্যুর ২৪ দশমিক ২৩ শতাংশ।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়, ২০১৬-১৭ সালে পরিচালিত একটি জরিপে, অর্থনৈতিক ক্ষতি, চিকিৎসা ব্যয়, জীবনযাত্রার ব্যয়, যানবাহন ও প্রশাসনিক ক্ষতি এবং অন্যান্য সমস্ত হিসাব থেকে এই চিত্রটি তুলে ধরা হয়েছে। কর্মজীবী ব্যক্তি যিনি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। সব মিলিয়ে একটি মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রায় ৫ মিলিয়ন টাকার অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে। তবে প্রাণঘাতী দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে সাধারণ দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে প্রায় ৫ লাখ টাকা ক্ষতি হয়। বাংলাদেশের মতো উনয়নশীল দেশের জন্য সড়ক দুর্ঘটনা একটি উদ্বেগজনক বিষয়। দুর্ঘটনা মানবিক ও অর্থনৈতিক উভয় অবস্থাকে প্রভাবিত করে। হিউম্যান ক্যাপিটাল পদ্ধতিতে একটি খরচ অনুমান মডেল করা হয়েছে। বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউট (এআরআই) থেকে ঐতিহাসিক দুর্ঘটনার তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রতি বছর সড়ক দুর্ঘটনায় প্রায় ৩,৫০০ লোক মারা যায় এবং ২,৬৫০ জন আহত হয়। ২০২০ সালে দুর্ঘটনার আনুমানিক মোট ব্যয় প্রায় ৪,১১৮ মিলিয়ন ডলার  (৩৫,০০১ কোটি টাকা) যা বাংলাদেশের মোট মোট দেশজ পণ্যের (জিডিপি) ১.৩% গঠন করে। একটি মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতি সড়ক দুর্ঘটনায় গড় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ (টাকায়) মোট ক্ষতির পরিমাণ ৪৯ লাখ ৬৯ হাজার।

একজন কর্মজীবী ব্যক্তির অর্থনৈতিক ক্ষতি, সরকারি সমীক্ষা দেখায় যে সড়ক দুর্ঘটনায় একজন কর্মজীবী ব্যক্তির মৃত্যুর ফলে গড় অর্থনৈতিক ক্ষতি হয় ২৪,৭২,১০৮ টাকা। গুরুতর আঘাতের ক্ষেত্রে, গড় আর্থিক ক্ষতি হয় ২১,০৯৮। তবে সাধারণ দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে তা মাত্র ১,৫৯৬ টাকা।

বেশিরভাগ দুর্ঘটনা বিশ্লেষণে; ক্ষতিগ্রস্তদের জরিপ করে বা তাদের গড় বেতন গণনা করে ক্ষতি গণনা করা হয়। যাইহোক, বাংলাদেশ রোড রিসার্চ ল্যাবরেটরির (বিআরআরএল) ট্রাভেল টাইম কস্ট (টিটিসি) জরিপের ভিত্তিতে মোটরযান ব্যবহারকারীদের গড় আয় গণনা করা হয়েছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (২০১৫-১৬) অনুসারে, একা পথচারীদের গড় আয় মাথাপিছু ৯,৫৫০ টাকা অনুমান করা হয়েছে। গবেষকরা বলছেন যে তারা তাদের নমুনা থেকে দুর্ঘটনার শিকারদের গড় বয়স গণনা করেছেন তাদের গড় জীবনকালের আয় কেমন হবে তার একটি ধারণা দিতে। দুর্ঘটনার কারণে হারিয়ে যাওয়া বছরের সংখ্যার উপর ভিত্তি করে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ গণনা করা হয়।

অন্যদিকে, আহতদের ক্ষেত্রে ওই কয়েক দিনের আর্থিক ক্ষতির হিসাব করা হয়েছে তার দৈনিক আয়কে দুর্ঘটনার পর একজন ব্যক্তিকে যে সময়ের জন্য কাজ থেকে দূরে থাকতে হয় তার দৈর্ঘ্য দিয়ে গুণ করে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উনয়নশীল দেশগুলিতে, গুরুতর আঘাতগুলি সারতে ৩০ দিন পর্যন্ত সময় লাগে এবং ছোটখাটো আঘাতের জন্য দুই দিন পর্যন্ত সময় লাগে। সড়ক দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের চিকিৎসার খরচের মধ্যে রয়েছে-প্রাথমিক চিকিৎসা ও উদ্ধার অভিযান, হাসপাতালের খাবার, বিছানা, অপারেশন, এক্স-রে, ওষুধ, ডাক্তারের ফি এবং পরবর্তী পুনর্বাসনের খরচ। তবে বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় আহতদের খুব কমই অ্যাম্বুলেন্স সেবা বা প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়- বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তাদের উদ্যোগে চিকিৎসা কেন্দ্র বা বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। ঘটনাস্থলেই যারা নিহত হয়, তাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। অন্যদিকে, হাসপাতালে ভর্তির খরচ বের করা বেশ কঠিন বলে মনে করা হয়। কারণ, গুরুতর আহতদের ক্ষেত্রে, হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের ক্ষেত্রে ১০ দিন এবং হাসপাতালে ভর্তি না হওয়া রোগীদেও ক্ষেত্রে দুই দিন গণনা করা হয়।

৩৮% সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে থাকে অসাবধানে গাড়ি চালানোর কারণে কারণ বেশিরভাগ চালক ট্রাফিক নিয়মের প্রতি তাদের অবাধ্য মনোভাবের পাশাপাশি সঠিকভাবে প্রশিক্ষিত বা উপযুক্ত বিশ্রামও পান না। গত পাঁচ বছরে সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত ৪০,০০০ মানুষ নিহত এবং ৬০,০০০ জন প্রতিবন্ধী হয়ে গেছেন, বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউট-এর মতে, দেশের প্রায় কোটি টাকার অর্থনৈতিক ক্ষতিও হয়েছে। সড়ক দুর্ঘটনার কারণে প্রতি বছর ৩৮,০০০ কোটি টাকা। তাদের গবেষণার ফলাফল অনুসারে, সড়ক দুর্ঘটনায় ৫৩% প্রাণহানির জন্য অতিরিক্ত গতি দায়ী এবং ৩৮% মৃত্যুর জন্য বেপরোয়া গাড়ি চালানো এবং বাকি অন্যান্য কারণে।

জাতীয় মহাসড়ক ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সড়কের প্রতি দুই কিলোমিটারে রাডার স্পিড-এনফোর্সমেন্ট ক্যামেরা স্থাপন করে, চালকদের দক্ষতা বৃদ্ধি করে এবং সারাদেশে ১০০টি ড্রাইভিং স্কুল স্থাপন করে এবং কঠোরভাবে দক্ষ চালক তৈরি করে সড়ক দুর্ঘটনা ও হতাহতের ঘটনা দ্রুত হ্রাস করা যেতে পারে। ট্রাফিক নিয়ম এবং প্রবিধান প্রয়োগ করা।

যানবাহন-নন-মোটর চালিত, হিউম্যান হলার, মোটরবাইক এবং থ্রি-হুইলার- জাতীয় মহাসড়কে অবশ্যই সীমাবদ্ধ রাখতে হবে, পাশাপাশি বাসের ছাদে এবং ট্রাকে অবৈধ যাত্রী বহন বন্ধ করতে হবে, মহাসড়কের পাশে সঠিক রাস্তার গান স্থাপন করতে হবে এবং শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে হবে। সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে পরিবহন খাতও গুরুত্বপূর্ণ।

সরকার দুই বছর আগে ২০২০ সালের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনার হার অর্ধেকে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করলেও এখনো এ বিষয়ে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেনি। ডুবুরিদের দ্বারা গতি সুরক্ষা সীমা লঙ্ঘন সারা দেশে মোট সড়ক দুর্ঘটনার কমপক্ষে ৫৩% অবদান রাখছে।

সরকার জ্যামিতিক নকশার মান অনুযায়ী মহাসড়কের নিরাপদ গতিসীমা ঘণ্টায় ৮০ কিমি নির্ধারণ করেছে। কিন্তু যেহেতু আমাদের মহাসড়কগুলি রাস্তার পাশের বাজার, দোকান এবং অনানুষ্ঠানিক যানবাহনের গতির মতো স্থানীয় ঘর্ষণ থেকে মুক্ত নয় তাই এটি ৬০ কিমি/ঘন্টার বেশি হওয়া উচিত নয়। কিন্তু, ভারী এবং হালকা উভয়ে যানবাহনের বেশিরভাগ চালক হাইওয়েতে প্রতি ঘন্টায় ১০০-১২০কিমি বেগে তাদের যানবাহন চালায় কারণ বর্তমানে গতি সীমা লঙ্ঘনকারীদের শনাক্ত করার এবং শাস্তি দেওয়ার জন্য কোনও ক্ষেত্র ব্যবস্থা নেই। ৩৮% সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে থাকে অসাবধানে গাড়ি চালানোর কারণে কারণ বেশিরভাগ চালক ট্রাফিক নিয়মের প্রতি তাদের অবাধ্য মনোভাবের পাশাপাশি সঠিকভাবে প্রশিক্ষিত বা উপযুক্ত বিশ্রামও পান না।

বৈশ্বিক রীতি অনুযায়ী, বিরতি ছাড়া চার ঘণ্টার বেশি গাড়ি চালানো উচিত নয়। চার ঘণ্টা গাড়ি চালানোর পর প্রত্যেক চালককে এক ঘণ্টা বিশ্রাম নিতে হবে। কিন্তু এখানকার চালকরা দিনে দুই শিফটে ডিউটি করেন এবং পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিয়ে পরপর তিন থেকে চার দিন গাড়ি চালান। এ কারণে তারা গাড়ি চালানোর সময় একাগ্রতা হারিয়ে ফেলে, মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটায়। সমস্যা সমাধানের জন্য রাডার স্পিড-এনফোর্সমেন্ট ক্যামেরা জাতীয় মহাসড়ক এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ শহর ও আঞ্চলিক সড়কের প্রতি এক বা দুই কিলোমিটারে স্থাপন করা যেতে পারে।

এই ক্যামেরা ঘন কুয়াশার মধ্যেও যানবাহনের গতি এবং নম্বর প্লেট-সেন্সর করতে সক্ষম হবে। যারা গতিসীমা এবং ট্রাফিক নিয়ম লঙ্ঘন করবে তাদের সহজেই এসএমএস বা অন্যান্য ডিজিটাল মাধ্যমে জরিমানা টিকিট পাঠানোর মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে শনাক্ত করা যাবে এবং শাস্তি দেওয়া যেতে পারে, যা সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে সাহায্য করবে। জনবল, যথাযথ লজিস্টিক ও প্রযুক্তিগত সহায়তার অভাবে হাইওয়ে পুলিশ আইন প্রয়োগ ও সড়ক দুর্ঘটনা রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারছে না। এখন হাইওয়ে পুলিশকে নিরাপত্তার কারণে ব্যবহার করা হচ্ছে কারণ তারা বেশিরভাগই মাদক উদ্ধার বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য যানবাহন চেক করে।
যে কোনো দুর্ঘটনার জন্য সবাই চালকদের দায়ী করে, কিন্তু রাষ্ট্র বা চালক, শ্রমিক সমিতি এবং নেতারা তাদের দক্ষতা ও দায়িত্ববোধ বাড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য কোনো পদক্ষেপ  নেয়নি বা কোনো বিনিয়োগ করেনি। বর্তমান চালকদের দক্ষতা বাড়াতে এবং সক্ষম চালক তৈরি করতে সারা দেশে ১০০টিরও বেশি ড্রাইভিং স্কুল স্থাপন করা যেতে পারে।

এআরআই-এর গবেষণায় দেখা গেছে দেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি কমপক্ষে ১% বাড়বে যদি সরকার সড়ক দুর্ঘটনাকে অর্ধেক করতে পারে। ৩৮,০০০ কোটি বার্ষিক দুর্ঘটনাজনিত ক্ষতি বর্তমান জিডিপির প্রায় ২%।

হীরেন পণ্ডিত: প্রাবন্ধিক ও গবেষক।

Kabir Steel Re-Rolling Mills (KSRM)
Rocket New Cash Out
Rocket New Cash Out
BKash My Offer